সায়েন্টিফিক প্রেম- শরণ্যা নাথ

অণু গল্পঃ

শরণ্যা নাথ

“আমি তোমার বিরহে রহিব বিলীন”-
সবে মৌতাতটা জমে উঠেছিল অমৃতার। আঙুলের ফাঁকে জ্বলন্ত সিগারেটের ধোঁয়া আজ খালি প্রাক্তনকে মনে করাচ্ছে। ওর ভাবনার মধ্যে ছেদ টানlল ওর ভাই ঋতম।
– ” দি, প্লিজ, কাল এগজাম আছে, ফিজিক্স, তোর ন্যাকা বস্তাপচা সেন্টিমেন্টস আজ একটু বন্ধ রাখিস।”
-তীব্র বিরক্তিতে জানালার পাশে এসে দাঁড়ায় , ঋতম মুখার্জী, মিস অমৃতা মুখার্জীর সহোদর ভাই।
ঈষৎ বিরক্ত হয়েও মুখে একটা বাঁকা হাসি এনে অমৃতা বলে
-” ও রিয়েলি ! সারা বছর না পড়লে অবিশ্যি তাই হয়।”
মুখে একটা বাজে কথা আসতে আসতেও সামলে নেয় ঋতম। দিদিটা না, বড্ড বোকা !
গেল বছর প্রকাশ দা, তার আগের বছর কুশল, খালি গাধার মত সোহাগ -ভালোবাসা জানে। সবাই খালি ঠকায়। তোর প্রেমে পড়ার দরকার কী বাপু? প্রেমে পড়া একটা রোগ হয়ে গেছে। বায়োলজি ব্যাচের তানিয়া তো ঋতম বলতে পাগল,
“বুলাতি হ্যায় মগর জানে কা নহী”, গর্ব ভরে ঋতম গিয়ে চেয়ারে বসে কফিটা এগিয়ে দেয় দিদির দিকে।
” আয়, কফি টা ঠান্ডা হয়ে যাচ্ছে”-একটু অভিমান ফুটে ওঠে আহ্বানে।
ওই দিক থেকে সাড়া না পেয়ে শেষ মেশ ইগোটা ঝেড়ে ফেলে ডাকে, “এই দিদি।”
চমকে ওঠে অমৃতা।
ঘাড় ঘুড়িয়ে জিজ্ঞাসা করে, ” গতিবেগের অঙ্কগুলো দেখেছিস? “
দিদির এই প্রশ্নগুলো খুবই ভয়াবহ লাগে। বরাবরই টপার হয়ে এসেছে দিদি।
একটু থেমে ঋতম বলে, “তুই প্রীতমদা কে মিস করছিস? “
“তোকে ওসব ভাবতে হবে না। “-গাম্ভীর্যপূর্ণ স্বর। 
” আচ্ছা তোরা প্রেমে কেন পড়িস? এত বোকা কেন? না জেনে না শুনে এত বিশ্বাস করিস কীভাবে?”
“ছোট আছিস, ছোটদের মতই থাক।”
“একটা কথা বলি, লাইফটা সাইন্টিফিক কর। ব্রেন দিয়ে ভালবাস, মন দিয়ে নয়।”
ক্লাস টুয়েলভ এর ছেলের মুখে এইসব শুনে হেসে ফেলে অমৃতা। ভাই কত সমঝদার! একটা হাতের স্পর্শ অনুভব করে ও। কখন ভাই পাশে এসে দাঁড়িয়েছে, খেয়াল করেনি।
“প্লিজ দিদি, তুই আর ভালবাসিস না, তোকে বারবার ভাঙতে দেখতে পারব না। জন্ম থেকে বাবা মা কে ব্যস্ত দেখেছি, তোকে নিয়েই তো আমার সব। সো প্লিজ। ”
“এই পৃথিবী টা বড্ড দু মুখো রে ভাই। “
“চল না দিদি, অপু-দুর্গা সাজি!”
“অপু-দুর্গা !”
“হ্যাঁ দিদি, ট্রেন দেখবো তোর সাথে। “
“তোর ভাইফোঁটা র গিফটটা পাওনা ছিল, চল আজ একসাথে ঘুরে আসি। “
এই প্রথম এগজাম নিয়ে দিদির মাথা ব্যথা দেখা গেল না।
তাও আজ ঋতম খুব খুশি।
এই তো পেয়ে গেছে,
“টুরু লাভ”। 

লেখক পরিচয়ঃ শরণ্যা নাথ এমবিবিএস পাঠরতা, সাহিত্য অনুরাগী। Inside Vision এ তাঁর অনুগল্প ‘সায়েন্টিফিক প্রেম’ এক অন্য আঙ্গিকে হারিয়ে যাওয়া সম্পর্কের ঝাঁকি দর্শন যেন আমাদের বলে যায় ‘তোমার মহা বিশ্বে কিছু হারায় না তো কভু

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *