ভূমিপুত্র সংরক্ষণকে নির্বাচনে প্রাসঙ্গিক করবার লক্ষ্যে রবিবার পথে নামছে ‘বাংলা পক্ষ’

ওয়েব ডেস্কঃ

রাজ্যে সরকারি ও বেসরকারি চাকুরি ক্ষেত্রে, বিভিন্ন টেণ্ডার, ঠিকা কাজ, হকারি ও ট্রেড লাইসেন্সের ক্ষেত্রে ভূমিপুত্রদের সংরক্ষণের দাবিতে ‘জয় বাংলা’ ধ্বনিতে সরগরম হতে চলেছে শহর কলকাতা। আগামী রবিবার বিকেলে কলকাতার রানী রাসমনী রোডে প্রকাশ্য জনসভার ডাক দিয়েছে ‘বাংলা পক্ষ’। দীর্ঘদিন ধরে সোশ্যাল মিডিয়ার পাশাপাশি আঞ্চলিক ভাবে বাংলা ও বাঙালির বিভিন্ন দাবি ও বেনিয়মের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়ে প্রতিবাদ ও সচেতনতা প্রসারের কাজ করে আসছে এই সংগঠন।

ইতিমধ্যেই ‘বাংলা পক্ষ’ পশ্চিমবঙ্গের প্রায় সবকটি জেলার বিধায়কদের এই মর্মে স্মারক লিপিও দিয়েছে। একই সঙ্গে প্রতিটি জেলায় সভা, জমায়েত ও মিছিল করে এই বিষয়ে সাধারণ মানুষকে ওয়াকিবহাল করেছে। আগামী ১৭ জানুয়ারির ‘মহাসমাবেশ’ থেকে এই দাবিকে আরও জোরালো করা হবে এবং আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে ভূমিপুত্র সংরক্ষণের বিষয়টিকে অন্যতম ইস্যু হিসাবে তুলে ধরা হবে বলে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে ‘বাংলা পক্ষ’।

পাশাপাশি পশ্চিম বাংলার তুলনায় অন্যান্য রাজ্যগুলিতে বিভিন্ন পেশাগত কাজে ভূমিপুত্রদের সংরক্ষণের একটি তুলনামূলক খতিয়ান তুলে ধরে বাংলা পক্ষের আইটি র দায়িত্বে থাকা প্রীতম দত্ত বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম থেকে প্রাপ্ত তথ্য উল্লেখ করে বলছেন, ” কর্ণাটকে যেখানে বেসরকারি ও সরকারি চাকুরিক্ষেত্রে যথাক্রমে ৭৫% ও ১০০% সংরক্ষণ থাকে, গুজরাটে সেখানে বেসরকারিক্ষেত্রে ভূমিপুত্রদের সংরক্ষণ থাকে ৮০% । এছাড়াও সরকারি কাজের ক্ষেত্রে তেলেঙ্গানা ও মহারাষ্ট্রে ৮০% করে এবং হরিয়ানা ও ঝাড়খণ্ডে ৭৫% করে ভূমিপুত্রদের সংরক্ষণ দেওয়াটাই দস্তুর। আর এই সব রাজ্যের তুলনায় কোথায় দাঁড়িয়ে আমাদের রাজ্য!”

কোনও রাজনৈতিক দলের পতাকার তলায় নয়, কিন্তু অবশ্যই রাজনৈতিক চেতনা সমৃদ্ধ অরাজনৈতিক এই জমায়েত তাই আগামী রবিবার এক অন্য দিশা দেখাবে বলেই আশাবাদী ‘বাংলা পক্ষ’। আর এই জমায়েতের আগে একটি মহা মিছিল সকাল ১০টায় হাওড়া স্টেশন থেকে শুরু হয়ে হাওড়া ব্রিজ, বড়বাজার, ব্রাবোন রোড, বিবাদি বাগ হয়ে ধর্মতলায় পৌঁছাবে।

‘বাংলা পক্ষ’র শীর্ষ নেতৃত্ব গর্গ চট্টোপাধ্যায়, কৌশিক মাইতি, অমিত সেন, সহেলী চক্রবর্তী, জয়দীপ দে রা মহাসভা থেকে কী বার্তা দেন এবং বর্তমান রাজ্য রাজনীতিতে তার কী প্রভাব পড়ে সেটাই এখন দেখার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *