প্রকৃতির কোলে পুজোর ‘মানত’ বর্ধমানে প্রথমবার

ওয়েব ডেস্কঃ

এখানে শরৎ আসে উজাড় করা কাশের বনে শিরশিরে হাওয়ার হিল্লোল তুলে,
নদীর ভেসে থাকা নৌকায় লাগে দোলা,
শেষ বেলার সোনালী আভায় কালো গাছপালার সিল্যুয়েটে এখানে লেখে অরূপকথা।
মাথার ওপর স্বচ্ছ আকাশে তারা জাগা রাত এখানে শিউলির ঝরে পড়া দেখে।
পদ্মকলি ফুটে উঠে নতুন দিনকে স্বাগত জানায় এখানে।
এখানে শারদীয়ার বোধন থেকে বিসর্জন বড্ড আন্তরিক।
পূর্ব বর্ধমানের বড়শুল। দামোদর নদের পার্শ্ববর্তী এক ছবির মত জনপদ।

বড়শুলের জাগরণী ব্যতিক্রমী ভাবনার আঁতুড়ঘর। এবারের অতিমারি ক্লিষ্ট দুর্গাপুজায় বড়শুল জাগরণীর থিম ‘মানত’। আর এই মানতকে কেন্দ্র করেই একটা যুগলবন্দী দেখতে চলেছে বর্ধমান এই প্রথম বার। এবারের দুর্গাপুজোয়। পাঁচ বারের বিশ্ব বাংলা শারদ সম্মান বিজয়ী রূপকল্প শিল্পী পুলক ঘোষাল এবং শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের পরিচিত নাম মল্লার ঘোষের যুগলবন্দী, এবার পূর্ব বর্ধমানের বড়শুল জাগরণীর দুর্গাপুজোয়।

রূপকল্প শিল্পী (থিম মেকার) পুলক ঘোষাল বলছেন অতিমারি ক্লিষ্ট জনজাতি গ্রামীণ লোকাচারে, বিশ্বাসে দশপ্রহরণধারিণীকে বরণ করতে চলেছে। এবারের পুজোয় সে ভুবনমনমোহিনীর কাছে সেই যন্ত্রণাক্লিষ্ট মানবজাতি মানত করছে মহামারী মুক্ত পৃথিবীর। মানত করছে আত্মবোধ, বিশ্ব কল্যাণবোধ, মানব কল্যাণবোধ জাগরণের, মানত করছে বিশ্ব ভ্রাতৃত্ববোধ উন্মেষের।

প্রতিমা শিল্পী সিদ্ধার্থ পাল কাজ শুরু করেছেন মৃন্ময়ীকে চিন্ময়ীতে রূপদানের। আর অন্যদিকে পণ্ডিত মল্লার ঘোষ তাঁর সুর মূর্ছনায় এক অনন্য আবহ রচনা করবেন বড়শুল জাগরণীর দুর্গোৎসবে।

আর এই মেল বন্ধনের, এই যুগলবন্দীর নেপথ্য কারিগর ডিএনভি আর্ট এণ্ড ক্রাফট, যারা ভারতীয় চিত্রকলা, ভাস্কর্য ও আলোকচিত্রকে বিশ্বের দরবারে পৌঁছে দেওয়ার কাজ করে চলেছেন নিরলস ভাবে। আমদের রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তের চিত্রশিল্পীদের কাজ নিয়ে তাঁরা ইতিমধ্যেই পাড়ি দিয়েছেন ইউরোপের বিভিন্ন আর্ট গ্যালারীতে। তাঁদের সক্রিয় অংশগ্রহণ ও আনুকুল্যেই এবার বর্ধমানবাসী এই প্রথম সাক্ষী থাকছেন এ ধরনের শুদ্ধ শুচি, সুস্থ রুচির দেবীবন্দনায়। সম্প্রতি হয়ে গেল এই দুর্গাপুজোর খুঁটি পুজো।

পুজোর কদিনে শহর থেকে একটু বাইরে গিয়ে একটা বেলা কাটিয়ে আসতেই পারেন পূর্ব বর্ধমানের বড়শুলে। দামোদর নদের পাড়ে বসে কাশ ফুল, ভেসে থাকা ডিঙি নৌকো আর আকাশে ভাসমান মেঘের ভেলা। এক লহমায় প্রকৃতির বুকে এসে মনের আরাম পাবেনই। আর সাথে উপরি পাওনা হিসাবে তো আছেই বড়শুল জাগরণীর ‘মানত’।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *